1. admin@amarsylhetnews.com : admin2020 :
  2. zoshim98962@gmaiil.com : আমার সিলেট ডেস্ক : আমার সিলেট ডেস্ক
  3. amarsylhetnews@gmail.com : আমার সিলেট নিউজ : আমার সিলেট নিউজ
  4. editor@amarsylhetnews.com : Amar SylhetNews : Amar SylhetNews

    শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০৭:১১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::

বাহুবলে ওয়াজ থেকে ফেরার পথে কিশোরকে কুপিয়ে হত্যা

  • আপডেট সময় বুধবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১৩৪ বার পড়া হয়েছে

জুবায়ের আহমেদ , বাহুবল (হবিগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জ জেলার বাহুবলে ওয়াজ শুনে বাড়ি ফেরার পথে আলমগীর মিয়া (১৫) নামের এক কিশোরকে কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন।

মঙ্গলবার ১২ জানুয়ারী রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার পুটিজুরী ইউনিয়নের বাংলাবাজার নামকস্থানে এ ঘটনাটি ঘটে।

নিহত আলমগীর পুটিজুরী ইউনিয়নের আহমদপুর গ্রামের আফতাই মিয়ার ছেলে। সে পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী ব্যক্তি ছিল।
তার পিতা আফতাই মিয়া দীর্ঘদিন যাবৎ প্যারালাইসেসে পঙ্গু হয়ে শয্যাশায়ী। উপার্জনের ক্ষম ব্যক্তি পরিবারের বড় ছেলেকে হারিয়ে পাগলপ্রায় তার পিতামাতা। ৬ ভাই বোনের মধ্যে আলমগীর ছিল সবার বড়।

জানা যায়,হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার বড়চর গ্রামের একটি ওয়াজ শুনে বাড়ি ফেরার পথে পুটিজুরী ইউনিয়নের বাংলাবাজার নামক স্থানে একটি ব্যাড মিন্টন টুর্ণামেন্টের পাইনাল খেলা দেখার জন্য রওয়ানা হয়ে বাংলা বাজার তাহির মিয়ার দোকানের কাছে পৌঁছলে মোটরসাইকেল ও সিএনজি অটোরিক্সা নিয়ে আসা একদল দুর্বৃত্ত পিছন দিক থেকে তার সারা শরীরে ডেগার – ছুরি দিয়ে সজোরে আঘাত করলে সে মাঠিতে লুঠিয়ে পড়ে।

তাৎক্ষনিক তার সাথে থাকা বন্ধু পুটিজুরী ইউনিয়নের যাদবপুর গ্রামের জালাল উদ্দিনের পুত্র মুন্না সহ স্থানীয় লোকজন তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে বাহুবল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আলমগীকে মৃত ঘোষনা করেন।

নিহত আলমগীরের বন্ধু উপজেলার যাদবপুর গ্রামের মুন্না জানায়, দীর্ঘদিন পূর্বে তুচ্ছ বিষয় নিয়ে পুটিজুরী শরৎচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ে তার সাথে স্থানীয় সম্ভুপুর গ্রামের সোহেল মিয়ার পুত্র আকাশের বাক বিতন্ডা হয়। পরে গত পৌষ মাসের ২২ তারিখে মুগকান্দি গ্রামের মজনু শাহর ওরসে সম্ভপুর গ্রামের আকাশ নামের ওই ছেলের সাথে কথাকাটাকাটি হয় মুন্নার। গত মঙ্গলবারও বড়চর ওয়াজ মাহফিলে তাদের সাথে টেলা ধাক্কা হয় তাদের। এর জের ধরেই আকাশ ও তার লোকজন এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানা গেছে।

একটি সূত্র জানায়, হাসপাতাল থেকে মুন্নাকে আটক করে পুলিশের হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

তবে বাহুবল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ কামরুজ্জামান বলেন, ঘটনাটি পূর্ব বিরোধের জের ধরেই হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে। এ পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নাই বা এখন পর্যন্ত কাউকে আটক করতে পারিনাই, তবে ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারে আমাদের জোড়ালো অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর