1. admin@amarsylhetnews.com : admin2020 :
  2. zoshim98962@gmaiil.com : আমার সিলেট ডেস্ক : আমার সিলেট ডেস্ক
  3. amarsylhetnews@gmail.com : আমার সিলেট নিউজ : আমার সিলেট নিউজ
  4. editor@amarsylhetnews.com : Amar SylhetNews : Amar SylhetNews

    মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০১:৩৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অক্ষুন্ন রাখার অঙ্গীকার আলেম ওলামাদের নবীগঞ্জের সদর ইউপি নির্বাচনে নৌকার মাঝি হতে চান মাকাচ্ছিন মিয়া মহসিন বিয়ানীবাজারে ইয়াবাসহ নারী মাদক কারবারি গ্রেপ্তার দোয়ারাবাজারে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার শেখ রাসেল দিবসে কর্মসূচি পালন হয়নি,কামারকান্দি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তাহিরপুরে শেখ রাসেল দিবস উদযাপন জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের শ্রদ্ধা জ্ঞাপন বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে হবিগঞ্জে মানববন্ধন ও পথসভা হবিগঞ্জ শহরের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সাজিদুর রহমানের ইন্তেকাল বাহুবলের পুটিজুরী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা ॥ ৯ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী

এক মাছেই বাজিমাত ॥ ২ লাখ টাকা জিতে নিলেন মাধবপুরের ইউনুছ আলী

  • আপডেট সময় শনিবার, ৯ অক্টোবর, ২০২১
  • ২০ বার পড়া হয়েছে

মঈন উদ্দিন আহমেদ, হবিগঞ্জ ॥ শৌখিন মাছ শিকারি ইউনুছ আলী (৫৫)। শুক্রবার সকাল ছয়টায় ২২ হাজার টাকা দিয়ে বড়শি দিয়ে মাছ ধরার জন্য টিকিট কেনেন। সোয়া এক ঘণ্টা ধরে অনেক কসরত করেও মাছ ধরা পড়ছিল না। তাই মন বেজায় খারাপ ছিল। সকাল সোয়া ১০টায় বড়শির ছিপে ভারী কোনো কিছুর টান অনুভব করলেন। বড়শিতে ধরা পড়ল ৮ কেজি ওজনের কাতলা মাছ। সারা দিন আর কোনো মাছ পাননি তিনি। কিন্তু ওই এক মাছেই বাজিমাত হয়ে গেছে তাঁর। পুরস্কার হিসেবে পেয়েছেন ২ লাখ টাকা। আনন্দে আত্মহারা ইউনুছ আলী।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার কালীকচ্ছ ইউনিয়নের কলেজপাড়ার দিরেশ দিঘিতে শুক্রবার বড়শি দিয়ে শৌখিন মৎস্য শিকার প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। কালীকচ্ছ বন্ধু কল্যাণ মৎস্য প্রকল্প নামের একটি সংগঠন এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার আমতলা গ্রামের ইউনুছ আলী। তিনি ৮ কেজি ওজনের কাতলা মাছ শিকার করে প্রথম পুরস্কার হিসেবে ২ লাখ টাকা পেয়েছেন।
শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে বিকেল সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় ৩১ জন শৌখিন মৎস্যশিকারি অংশ নেন। তাঁরা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিভিন্ন উপজেলা ছাড়াও হবিগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ ও ময়মনসিংহ জেলা থেকে এসেছেন। এর জন্য প্রত্যেক শিকারিকে ২২ হাজার টাকা করে আয়োজকদের দিতে হয়েছে। প্রতিযোগিদের জন্য ছিল ৪ লাখ ৮৩ হাজার টাকার ৭টি পুরস্কার।
আয়োজকদের সূত্র জানায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের মেড্ডা এলাকার কমিশনার জামাল হোসেন ৫ কেজি ৩৫০ গ্রাম ও ৩ কেজি ৮৩০ গ্রাম ওজনের কাতলা মাছ শিকার করে দ্বিতীয় ও চতুর্থ হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা। একই শহরের কলীশিমা এলাকার হামদু মিয়া ৪ কেজি ৪৯৫ গ্রাম ওজনের কাতলা মাছ শিকার করে তৃতীয় হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ৫০ হাজার টাকা। সদর উপজেলার বুধল ইউনিয়নের নন্দনপুর গ্রামের ফজল মিয়া ৩ কেজি ৪৬৫ গ্রাম ওজনের কাতলা শিকার করে ৬ষ্ঠ হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ৩০ হাজার টাকা। একই গ্রামের মাসুম মিয়া ৩ কেজি ৪৩০ গ্রাম ওজনের কাতলা মাছ শিকার করে ৭ম হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ২৮ হাজার টাকা। এই প্রতিযোগিতা দেখতে দিঘির চারদিকে প্রচুর দর্শকের সমাগম ঘটে।
প্রতিযোগিতায় প্রথম হওয়া ইউনুছ আলী বলেন, ‘আজ সারা দিনে মাত্র একটি মাছ পেয়েছি। আজ একটিতেই আমি খুশি। এর আগের আসরে এই দিঘি থেকে মাছ ধরে আমি দুটি পুরস্কার পেয়েছিলাম। তখন ১৫ কেজি ওজনের কয়েকটি মাছ পেয়েছিলাম।’

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর