সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যানসহ চার নেতাকে আ’লীগ থেকে অব্যাহতি ইনাতগঞ্জে শালিস বৈঠকে পরিকল্পিত হামলা নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতিসহ ৫জন আহত লাখাইয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল ও পুরস্কার বিতরণ চুনারুঘাট যুব এসোসিয়েশনের ঈদ পূর্ণমিলনী ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ তাহিরপুরে প্লাবিত হয়ে প্রায় অর্ধশত গ্রাম যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন বাহুবল৭নং ভাদেশ্বর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় সভাপতি নির্বাচিত বশির বাহুবলে পুটিজুরী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগেরত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ও কাউন্সিল অনুষ্ঠিত মাদক ও জুয়ার বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের ঘোষনা মধ্যনগর থানার ওসি জাহিদুল হক দোয়ারাবাজারে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু

অগ্নিদগ্ধ অর্পিতা রায় বাঁচতে চায়

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৭ জানুয়ারী, ২০২২
  • ১০৬ বার পড়া হয়েছে

মঈন উদ্দিন আহমেদ, হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : ৮ বছরের অর্পিতা রায়। হবিগঞ্জ শহরের পিটিআই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণীর ছাত্রী। ২৫ দিন আগে বাসায় নিজের অজান্তেই চুলার আগুন গায়ে লেগে যায়।

মাকে চিৎকার দিয়ে ডাক দিলে এগিয়ে আসেন মা। চালিয়ে যান মেয়েকে বাঁচানোর প্রাণপণ চেষ্টা। ততক্ষণে শরীরের বেশিরভাগ অংশই পুড়ে যায়। মেয়েকে বাঁচাতে মা কান্তা রায়ও আহত হন।

কিন্তু অর্পিতার অবস্থা হয়ে পড়ে মুমুর্ষ। শরীরের ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ ক্ষতিগ্রস্থ অবস্থায় অর্পিতা বর্তমানে ঢাকায় শেখ হাসিনা বার্ণ ইউনিটে ভর্তি আছে। কিন্তু তার এই ব্যয় বহুল চিকিৎসা করাতে গিয়ে দরিদ্র পিতা বিপ্লব রায় সর্বশান্ত হয়ে পড়েছেন।

অবশিষ্ট চিকিৎসা করানোর মত টাকা নেই তার কাছে। এ ব্যাপারে তিনি সমাজের বিত্তবানদের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

হবিগঞ্জ শহরের নোয়াহাটি এলাকার বিপ্লব রায় চাকুরী করেন একটি কাপড়ের দোকানে। তিন মেয়ে ও স্ত্রীকে নিয়ে অতিকষ্টে দিনাতিপাত করেন। অর্পিতার চিকিৎসায় এখন পর্যন্ত তার ব্যয় হয়েছে ২ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা। শ্বশুরবাড়ী ও আত্মীয়-স্বজনদের কাছ থেকে এই টাকা সংগ্রহ করেছেন।

বিপ্লবা রায় বলেন, ব্যয়বহুল চিকিৎসার খরছ মেটাতে গিয়ে আমার সহায় সম্ভল যা কিছু আছে সবটুকুই দিয়েছি। ডাক্তাররা বলেছেন ১৪দিন পর তার ব্যান্ডেজ খুলা হবে। এর পর আবারও অপারেশন হবে।

পরবর্তিতে ১৬দিন পর তার অগ্রগতি দেখে ডাক্তাররা সিদ্ধান্ত নিবেন। এই সময়ের চিকিৎসায় আরও ৩/৪ লাখ টাকা প্রয়োজন। এতদিন নিজেই কষ্ট করে টাকার ব্যবস্থা করেছি। এখন যেহেতু আমার সামর্থ নেই তাই সবার সহযোগিতা কামনা করছি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর