সংবাদ শিরোনাম ::
ওসমানীনগরে নিজেদের দখলবাজী-সন্ত্রাসী কর্মকান্ড আড়াল করতে প্রবাসী কামাল বিরুদ্ধে অপপ্রচার বাহুবলে আলোচিত কলেজ ছাত্রী ধর্ষণ মামলার আসামী হাবিবুর সিলেট থেকে গ্রেফতার হবিগঞ্জে নদীর চোরাবালিতে আটকা পড়ে ২ ছাত্রের করুন মৃত্যু বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব লাখাইয়ে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ চেয়ারম্যান ও ইউএনওর সাথে বাহুবল প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের সৌজন্য সাক্ষাৎ দোয়ারাবাজারে বীর মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিছ আলীর ইন্তেকাল, রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন সম্পন্ন হবিগঞ্জে পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় মোটর সাইকেল আরোহী নিহত বাহুবল প্রেসক্লাবের কমিটি গঠন নবীগঞ্জে দুটি ইউনিয়নে ১৩ টি স্কুলে আশ্রয় নেওয়া পরিবারের মধ্যে রান্না করা খাবার প্রদান

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

  • আপডেট সময় সোমবার, ১৩ জুন, ২০২২
  • ৩৫২ বার পড়া হয়েছে

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ
রবিবার (১২ জুন) দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় ‘আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে রাজাকারপুত্র আব্দুল হাইয়ের এক যুগ!’ শীর্ষক শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে, যা আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। এই প্রতিবেদনটি সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। আমি এই প্রতিবেদনটির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আমার পিতা মরহুম সুরাত আলী ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। যা আদৌ সত্য নয়। আমার বাবা বাহুবল বাজারের একজন সুনামধন্য ব্যবসায়ী ছিলেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধাদের সাহায্যে এগিয়ে এসেছেন। ব্যবসার মালামাল মুক্তিযোদ্ধাদের সাহায্যার্থে বিলিয়ে দিয়েছেন। আর এখন আমাকে রাজনৈতিকভাবে হেনস্থা করার উদ্দেশ্যে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের একজন মানুষকে ‘রাজাকার’ আখ্যা দিয়ে অসম্মানিত করা হয়েছে।

বাহুবল উপজেলায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ বাস্তবায়ন করতে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করার জন্য আমি ত্যাগ ও সংগ্রাম করে চলেছি। উপজেলার আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের আস্থা ধরে রেখেছি বিধায় গত ৯ বছর ধরে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছি। একইসাথে বাহুবল উপজেলার আপামর জনসাধারণের ভোটে পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবেও নির্বাচিত হয়েছিলাম। আমি যদি মনোনয়ন বাণিজ্য করতাম তাহলে বাহুবলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও উপজেলার সর্বস্তরের মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠতে পারতাম না।

ওই প্রতিবেদনে মাতাল হয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে মাতলামির একটি ভিডিওর কথা উল্লেখ করা হয়েছে। ওই ভিডিওটি ছিল এডিট করা। আমি এ ব্যাপারে আইনের দ্বারস্থ হব। ওই মনগড়া প্রতিবেদনে আমার ব্যাপারে উল্লেখ করা সবকিছুই সর্বৈব মিথ্যা ও সম্পূর্ণ মনগড়া। এ ব্যাপারে কাউকে বিভ্রান্ত না হবার অনুরোধ করছি এবং আবারো ওই প্রতিবেদনের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

মোঃ আব্দুল হাই
সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
বাহুবল উপজেলা শাখা ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর